ইন্টারনেট থেকে কিভাবে টাকা ইনকাম করা যায়

হ্যালো বন্ধুরা, আপনারা কি ঘরে বসে ইন্টারনেট থেকে টাকা ইনকাম করতে চান? কিন্তু ভাবছেন কিভাবে করা যায়, কিভাবে কি করলে ইন্টারনেট থেকে টাকা ইনকাম করতে পারবেন? কিছু বুঝতে পারছেন না? বন্ধুরা তাহলে চিন্তার কোন কারন নেই। আজকে আমি এই পোস্টে আপনাদেরকে সবকিছু বুঝিয়ে দেব। তাই পুরো পোস্ট টি শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত মনোযোগ দিয়ে পড়ুন।

যুগের সাথে সাথে মানুষের আচার, আচরণ, কালচার, খাদ্যাভ্যাস, যেমন বদেলেছে, তেমনি বদলেছে মানুষের আয় বা উপার্জনের উপায়। আজ থেকে বেশিদিন আগে নয়, এই তো সেদিনও মানুষ টাকা করতে কত কষ্ট করতো। রোদে পুড়ে মাটি কাটা, অন্যের হয়ে দিন মজুরী করা, কৃষি কাজ, রাজমিস্ত্রি, হকার, আরো অনেক কাজ। এসব কাজ বর্তমানে থাকলেও তা আর আগের মত নেই। 
তাছাড়া যুগের পরিবর্তনের সাথে পরিবর্তিত হয়েছে আমাদের আয় করার পন্থা। এখন মানুষ ঘরে বসেই হাজার হাজার টাকা ইনকাম করছে। আপনার শুধু দরকার একটি কম্পিউটার বা ল্যাপটপ, ইন্টারনেট কানেকশন আর কাজের প্রতি ধৈর্য্য এবং সময়। তাছাড়া আপনি ইচ্ছা করলে এখন আপনার হাতে থাকা স্মার্টফোনটি দিয়েও টাকা আয় করতে পারবেন। কিন্তু তার আগে আপনাকে দক্ষতা অর্জন করতে হবে। হ্যাঁ, বন্ধুরা হোক সেটা অনলাইনে কাজ বা রিয়েল লাইফের কাজ। যেকোন কাজ করার আগে আমাদের দক্ষতা অর্জন করতে হবে। তানাহলে কাজ করে সফলতা অর্জন করতে  পারবেন না।

ইন্টারনেট থেকে টাকা ইনকাম করার উপায়

ইন্টারনেট থেকে টাকা আয় করার অসংখ্য উপায় আছে। আপনি কোন উপায়ে টাকা ইনকাম করতে চান সেটা আপনার উপর নির্ভর করে। আজকে আমরা তার মধ্যে থেকে সবচেয়ে ভালো কিছু উপায় নিয়ে আলোচনা করবো। তাহলে চলুন শুরু করা যাক।

১. ফ্রিল্যান্সিং

বর্তামনে এটি টাকা ইনকাম বা অনলাইন থেকে আয় করার সবচেয়ে জনপ্রিয় এবং কার্যকর উপায়। আমাদের দেশের হাজার হাজার মানুষ এখন এই সেক্টরে কাজ করে প্রতি মাসে হাজার হাজার ডলার ইনকাম করছে। ঠিকমত কাজ করতে পারলে ফ্রিল্যান্সিং করে বেশ ভালো পরিমাণ টাকা ইনকাম করা সম্ভব।
তবে ফ্রিল্যান্সিং কথাটা শুনলে যেমন টাকার গন্ধ পাওয়া যায় ঠিক তেমনি পরিশ্রমের গন্ধটাও পেতে হবে। ফ্রিল্যান্সিং এত সহজ কাজ নয়। প্রখর রোদে মাটি কাটতে যেমন কষ্ট করতে হয় ফ্রিল্যান্সিং করতেও ঠিক তেমন কষ্ট করতে হয়।

ফ্রিল্যান্সিং কি?

ফ্রিল্যান্সিং হলো অন্যের কাজ টাকার বিনিময়ে ঘরে বসে ইন্টারনেটের মাধ্যমে করে দেওয়া। ধরুন, আপনি আপনার কম্পানির জন্য একটা লোগো ডিজাইন করবেন, কিন্তু লোগো ডিজাইন আপনি পারেন না। তখন আপনি বিভিন্ন ফ্রিল্যান্সিং সাইট। যেমনঃ Fiverr, Freelancer, Uowork, ইত্যাদি সাইট থেকে কাজটা করিয়ে নিতে পারবেন। আপনার হয়ে ঘরে বসে অন্য একজন লোক কাজটা অর্থাৎ আপনার লোগোটা ডিজাইন করে দিবে। 
ঠিক একই ভাবে আপনি যদি কাজ শিখেন তাহলে আপনিও এভাবে অন্যের কাজ করে দেয়ার বিনিময়ে টাকা ইনকাম করতে পারবেন। এখন ফ্রিল্যান্সিং করার জন্য কি কাজ শিখবেন?

ফ্রিল্যান্সিং করার জন্য সবচেয়ে জনপ্রিয় কিছু দক্ষতা

  • ওয়েব ডিজাইন
  • গ্রাফিক্স ডিজাইন
  • ওয়েব ডেভেলপমেন্ট
  • সফ্টওয়্যার ডেভেলপমেন্ট
  • আর্টিকেল রাইটিং
  • ভিডিও এডিটিং
  • ফটো এডিটিং
এরকম অনেক কাজ আছে। আপনার যেটা ভালো লাগে বা আপনার যেই কাজের প্রতি আগ্রহ বেশি সেটা সিখতে পারেন।

ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শিখবেন?

ফ্রিল্যান্সিং শেখার জন্য আপনার কোন স্কুল-কলেজে ভর্তি হতে হবে না। আপনি ইচ্ছা করলে ইউটিউব, গুগল, ইত্যাদি ঘাটাঘাটি করে নিজে নিকেই শিখে নিতে পারবেন। তাছাড়া ইউটিউব এখন এমন একটা জায়গা যেখানে প্রায় সবকিছুই ফ্রিতেই শেখা যায়। ইউটিউব অনেক চ্যানেল আছে যেখানে নিয়মিত ফলো করলে আপনি খুব সহজেই ফ্রিল্যান্সিং করা শিখে নিতে পারবেন, তবে তারজন্য কাজের প্রতি আপনার একাগ্রতা থাকতে হবে।

২. ইউটিউবিং

বর্তমানে সবচেয়ে জনপ্রিয় ইন্টারনেট থেকে টাকা ইনকাম করার উপায় হলো ইউটিউব। এখান থেকে খুব সহজেই টাকা ইনকাম করা যায়। ইউটিউব থেকে টাকা ইনকাৃ করতে খুব বেশি পরিশ্রম বা দক্ষতার প্রয়োজন হয় না, তাই এটি এত জনপ্রিয়। তাছাড়া এখান থেকে বেশ ভালো পরিমাণ টাকা ইনকাম করা যায়।
তাই অনলাইন বা ইন্টারনেট থেকে টাকা আয় করার জন্য ইউটিউব একটা ভালো মাধ্যম। তবে ইউটিউবিং করা শুরু করার আগে আপনার কিছু হলেও দক্ষতা থাকতে হবে। আর তারও আগে প্রয়োজন আপনি কি নিয়ে বা কোন টপিক নিয়ে ইউটিউবে ভিডিও তৈরি করবেন।
আপনি রান্না, ভ্লগ ভিডিও, বাইক রাইডিং, গেমিং, বা কোন টিউটোরিয়াল ভিডিও নিয়ে কাজ করতে পারেন। তবে বর্তামানে অনন্যতা জনপ্রিয় টপিক হলো, গেমিং।
টপিক বাছাই করার পর আপনার প্রয়োজন, একটি কম্পিউটার বা ল্যাপটপ অথবা ভালোমানের একটি স্মার্টফোন। তারপর ভিডিও এডিটিং, থাম্বনেইল এডিটিং ইত্যাদি সম্পর্কে জ্ঞান থাকতে হবে। আর যদি এগুলো আপনি না পরেন তাহলে আগে এগুলো শিখে নিতে হবে।

৩. ব্লগিং

ইন্টারনেট থেকে টাকা ইনকাম করার এটি একটি পুরোনো এবং কার্যকরী উপায়। ব্লগিং অনেক আগে থেকেই টাকা ইনকামের বেশ ভালো একটি উপায় হিসেবে চলে আসছে। যখন ফ্রিল্যান্সিং, ইউটিউববিং বা ফেসবুক ইত্যাদির জনপ্রিয়তা ছিলোনা তখন কিন্তু মানুষ ইন্টারনেটে অনে ব্লগ পড়তো এবং অনেকে ব্লগিং করতো। ব্লগিং করেও ইন্টারনেট থেকে অনেক টাকা আয় করা যায়।
আমরা যখন গুগলে বা অন্যা সার্চ ইন্জ্ঞিঞিন গুলোতে কিছু সার্চ করি তখন আমাদের সামনে অনেকগুলো সার্চ রেজাল্ট দেখায়, এগুলো মূলত আমার আপনার মত সাধারণ মানুষের লেখাই। এগুলো গুগলের নিজের লেখা না। একেই বলে ব্লগিং।
ব্লগিং করেও আপনি হাজার হাজর টাকা ইনকাম করতে পারবেন। ব্লগিং করার জন্য আপনার টাইপিং জানা থাকতে হবে এবং ভাষার উপর বিশেষ দক্ষতা থাকতে হবে। তাছাড়া বানান, বাক্য গঠন, ইত্যাদি সম্পর্কেও বিশেষ দক্ষতা থাকতে হবে। তাহলেই আপনি ব্লগিং করে টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

Leave a Reply